1. mti.robin8@gmail.com : Touhidul islam Robin : Touhidul islam Robin
  2. newsnakshibarta24@gmail.com : Mozammel Alam : Mozammel Alam
  3. nakshibartanews24@gmail.com : nakshibarta24 :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৬:৩৮ পূর্বাহ্ন
৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তীব্র গরমে দুর্ভোগ নেমে এসেছে জনজীবনে।

  • প্রকাশকালঃ বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৬২ জন পড়েছেন

নকশী বার্তা ডেক্সঃ

তীব্র গরমে দুর্ভোগ নেমে এসেছে জনজীবনে। গরমে বাড়ছে জ্বর ও ডায়রিয়াসহ নানান রোগ। বেশি আক্রান্ত হচ্ছে শিশু ও বৃদ্ধরা।

লাকসামের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে মাঝারি তাপদাহ। অতিষ্ঠ জনজীবন। গরমে খেটেখাওয়া মানুষের কষ্ট যেন বেশি। জ্বর ও ডায়রিয়াসহ নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। গরম এলেই ডায়রিয়ার সমস্যা মারাত্মক আকার ধারণ করে। বিশেষ করে শিশু-কিশোররা এই রোগে বেশি আক্রান্ত হয়।

রিকশাচালক সানু মিয়া বলেন, আর পারছি না। খুব গরম। গলা শুকিয়ে যাচ্ছে। তাই একটু বিশ্রাম নিচ্ছি।

ফুটপাতে তরমুজ বিক্রেতা আকবর বলেন, ভালো গরম পড়ছে। ঈদের কারণে রাস্তায় মানুষ কম। তবে বেচা-বিক্রি একবারে খারাপ না। গরমে তরমুজের দাম আরও বাড়বে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সরেজমিনে দেখা যায়, গরমে অনেক শিশু ডায়রিয়া, হাঁপানি ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ভর্তির পাশাপাশি হাসপাতালের আউটডোরে রোগীর ভিড় দেখা গেছে।

এক সপ্তাহে অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া রোগী। এরইমধ্যে রোগীর চাপে রামেক হাসপাতালের ওয়ার্ডে ডায়রিয়া রোগীর জন্য বেড দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে। ফলে অনেকে বাধ্য হয়ে ওয়ার্ডের বাইরে মেঝেতে থাকছেন।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  ১২ জন গরমজনিত রোগী ভর্তি রয়েছে; যাদের অধিকাংশই ডায়েরিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত।

লাকসামের নরপাটি থেকে আসা আব্দুর রহমান মেয়েকে হাসপাতালে মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি করেছেন। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, গত পাঁচদিন ধরে দেড় মাস বয়সী শিশুর পাতলা পায়খানা ও জ্বর। পরে হাসপাতালে এসে জানা যায়, শিশুটির নিউমোনিয়া হয়েছে।

নাতিকে নিয়ে হাসাপাতালে এসেছেন পারুল আখতার। তিনদিন ধরে পাতলা পায়খানা, বমি এবং জ্বরে ভুগছে তার নাতি। শয্যা না থাকায় হাসপাতালের বারান্দার মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

রামেক হাসপাতালের ইনচার্জ ডা. শংকর কে বিশ্বাস গণমাধ্যমকে জানান, এখনও হাসপাতালে রোগীর ভিড় সহনীয় পর্যায়ে আছে। হঠাৎ গরম পড়ায় বিভিন্ন রোগে শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে। এখন গরম যত বাড়ছে, ডায়রিয়া রোগীও তত বাড়ছে। এ ক্ষেত্রে পানি ও তরলজাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন এই চিকিৎসকের।

এদিকে বুধবার দেশের বিভিন্ন স্থানে দিনের তাপমাত্রা আরও কিছুটা বেড়েছে। তাপমাত্রা ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পার হয়ে দেশের ৬ জেলায় বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ। তবে ঝড়-বৃষ্টির কারণে দু-এক জায়গায় কিছুটা কমেছে তাপমাত্রা।

তবে ঢাকায় তাপমাত্রা কিছুটা কমেছে। বুধবার বিকেলে রাজধানীর কোথাও কোথাও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয়েছে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে কমে হয়েছে ৩৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে ঢাকায় অস্বস্তিকর অনুভূতি কমেনি।

চট্টগ্রাম বিভাগের বেশির ভাগ অঞ্চল থেকে তাপপ্রবাহ দূর হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল চুয়াডাঙ্গায়। এছাড়া তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাওয়া কুমিল্লায় ৪২ দশমিক ৪, পাবনার ঈশ্বরদীতে ৪০ দশমিক ৫, যশোরে ৪০ দশমিক ২, কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪২ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তথ্য সূত্রঃ প্রতিদিনের সংবাদ

খবরটি সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো খবর

বিজ্ঞাপন

Laksam Online Shop

first online shop in Laksam

© All rights reserved ©nakshibarta24.com
কারিগরি সহায়তায় বিডি আইটি হোম